ক্রমহ্রাসমান প্রান্তিক উপযোগ বিধিটি ব্যতিক্রমসহ রেখাচিত্রের সাহায্যে উপস্থাপন।

একজন ভোক্তা মােট ৭ একক দ্রব্য ভােগের ক্ষেত্রে প্রথম, তৃতীয়, পঞ্চম ও সপ্তম একক ভোগের ক্ষেত্রে মােট উপযােগ যথাক্রমে ১২, ৩০, ৪০ ও ৪২ একক এবং দ্বিতীয়, চতুর্থ ও ষষ্ঠ একক ভােগের ক্ষেত্রে প্রান্তিক উপযােগ যথাক্রমে ১০, ৬ 2 একক হয়। প্রদত্ত তথ্য ব্যবহার করে পূর্ণাঙ্গ সূচি প্রণয়ন সাপেক্ষে পাঠ্যপুস্তকের সংশ্লিষ্ট বিধিটি ব্যতিক্রমসহ রেখাচিত্রের সাহায্যে উপস্থাপন।

ক্রমহ্রাসমান প্রান্তিক উপযোগ বিধিটি ব্যতিক্রমসহ রেখাচিত্রের সাহায্যে উপস্থাপন।

নমুনা সমাধান

প্রদত্ত তথ্য ব্যবহার করে পূর্ণাঙ্গ সূচি প্রস্তুত সাপেক্ষে পাঠ্যপুস্তকের সংশ্লিষ্ট বিধিটি ব্যতিক্রম সহ লেখচিত্রের উপস্থাপন:

ক) উপযােগের ধারণা

সাধারণ অর্থে উপযােগ বলতে উপকারিতা কে বুঝায়। কিন্তু অর্থনীতিতে উপযােগ বলতে কোনো দ্রব্য বা সেবার ওই বিশেষ মানকে বুঝায়, যা দ্বারা মানুষের বিশেষ অভাব মেটানাে সম্ভব হয়। উপযােগ একটি মনস্তাত্ত্বিক ব্যাপার হলেও অর্থনীতিতে উপযােগ্য সংখ্যা দ্বারা প্রকাশ করা হয়। হিসাবের সুবিধার্থে উপযােগ কে নিম্নোক্ত ভাগে ভাগ করা যায়।

১) মােট উপযােগ : কোনো নির্দিষ্ট সময়ে, একটি দ্রব্যের বিভিন্ন একক ভােগ থেকে প্রাপ্ত উপযােগের সমষ্টিকে মােট উপযােগ (TU) বলা হয়।

২) গড় উপযােগ : মােট উপযােগকে ভােগের সংখ্যা দ্বারা ভাগ করা হলে প্রাপ্ত ফলাফলকে গড় উপযােগ (AU) বলা হয়।

৩) প্রান্তিক উপযােগ : ভােগের পরিবর্তনের ফলে মােট উপযােগ এর পরিবর্তনের হারকে প্রান্তিক উপযােগ (MU) বলা হয়। অন্যভাবে বলা যায়, প্রতি একক ভােগের পরিবর্তনের ফলে মােট উপযােগ এর যে পরিবর্তন হয় তার হারকে প্রান্তিক উপযােগ বলা হয়।

খ) মােট উপযােগ ও প্রান্তিক উপযােগের সম্পর্ক

কোনো দ্রব্যের বিভিন্ন একক হতে প্রাপ্ত উপযােগের সমষ্টিকে মােট উপযােগ বলা হয়। পক্ষান্তরে, কোনো ভােগ এক একক বৃদ্ধির ফলে যে বাড়তি বা অতিরিক্ত উপযােগ পাওয়া যায় তাকে প্রান্তিক উপযােগ বলা হয়। নিম্নে মােট উপযােগ ও প্রান্তিক উপযােগের মধ্যে সম্পর্ক আলােচনা করা হলাে।

উপযােগ ও প্রান্তিক উপযােগের মধ্যে
উপযােগ ও প্রান্তিক উপযােগের মধ্যে
উপযােগ ও প্রান্তিক উপযােগের মধ্যে
উপযােগ ও প্রান্তিক উপযােগের মধ্যে

গ) ক্রমহ্রাসমান প্রান্তিক উপযােগ বিধি সুচি, চিত্র ও ব্যাখ্যা :

অন্যান্য অবস্থা স্থির থেকে, কোনাে নির্দিষ্ট সময়ে কোনাে ব্যক্তি যখন একই দ্রব্য ক্রমাগত ভাবে ভােগ করতে থাকে, তখন ঐ দ্রব্যের মােট উপযােগ বৃদ্ধি পেলেও প্রান্তিক উপযােগ ক্রমশ হ্রাস পায়। অর্থাৎ ভােগের এককপ্রতি বৃদ্ধি ও প্রান্তিক উপযােগ ক্রমান্বয়ে হ্রাস এ দুয়ের সম্পর্ককে অর্থনীতিতে ক্রমহ্রাসমান প্রান্তিক উপযােগ বিধি বলে।অধ্যাপক আলফ্রেড মার্শাল ১৯৮০ সালে তার বিখ্যাত গ্রন্থ ‘Principal of Economics’ -এ বলেন, কোন বিশেষ দ্রব্যের মজুত বৃদ্ধির ফলে কোনাে ব্যক্তি যে অতিরিক্ত উপযােগ লাভ করে তা মজুত বৃদ্ধির সাথে সাথে ক্রমশ হ্রাস পেতে থাকে।

অনুমিত শর্ত : ক্রমহ্রাসমান প্রান্তিক উপযােগ বিধিটি নিম্নোক্ত অনুমিত শর্তের উপর প্রতিষ্ঠিত;

১) উপযােগের পরিমানগত পরিমাপ সম্ভব।
২) ভােক্তার পছন্দ, আয় অপরিবর্তিত।
৩) ভােক্তা যুক্তিশীল।
৪) উপযােগ অর্থের মাধ্যমে প্রকাশ করা যায়।
৫) অর্থের প্রান্তিক উপযােগ স্থির।
৬) নির্দিষ্ট সময় বিবেচ্য।
৭) দ্রব্যের বিভিন্ন একক সমজাতীয় হবে।
৮) দ্রব্যটি বিভিন্ন এককে বিভাজ্য হবে এবং ভােগের একক পর্যাপ্ত।

সূচির মাধ্যমে ক্রমহ্রাসমান প্রান্তিক উপযােগ বিধিটির ব্যাখ্যা

ভোগের একক মোট উপযোগ প্রান্তিক উপযোগ
১ম ১২ একক ১২ একক
২য় ২২ একক ১০ একক
৩য় ৩০ একক ৮ একক
৪র্থ ৩৬ একক ৬ একক
৫ম ৪০ একক ৪ একক
৬ষ্ঠ ৪২ একক ২ একক
৭ম ৪২ একক ০ একক

চিত্রের মাধ্যমে ক্রমহ্রাসমান প্রান্তিক উপযােগ বিধিটির ব্যাখ্যা

চিত্রের মাধ্যমে ক্রমহ্রাসমান প্রান্তিক উপযােগ বিধিটির ব্যাখ্যা
চিত্রের মাধ্যমে ক্রমহ্রাসমান প্রান্তিক উপযােগ বিধিটির ব্যাখ্যা

চিত্রে ভূমি অক্ষে ভােগের পরিমাণ এবং লম্ব অক্ষে মােট উপযােগ ও প্রান্তিক উপযােগ ধরা হয়েছে। বিভিন্ন ভােগের এককের ফলে প্রাপ্ত মােট ও প্রান্তিক উপযােগ গুলাের মাধ্যমে মােট উপযােগ ও প্রান্তিক উপযােগ রেখা অংকন করি। দেখা যাচ্ছে যে মােট উপযােগ রেখা প্রথমে ক্রমবর্ধমান হলেও পরবর্তীতে তা আস্তে আস্তে ক্রমহ্রাসমান হয়ে এক সময় তা নিচের দিকে চলে এসেছে। অন্যদিকে প্রান্তিক উপযােগ রেখা বাম থেকে ডানে নিম্নগামী। এর মাধ্যমে বােঝা যায় যে, প্রান্তিক উপযােগ ক্রমহ্রাসমান। এটাই হলাে ক্রমহ্রাসমান প্রান্তিক উপযােগ বিধির চিত্রিত রূপ।

ক্রমহ্রাসমান প্রান্তিক উপযােগ বিধির ব্যতিক্রম সমূহ :

ক) সময়ের ব্যবধান : দ্রব্য ভােগের বিভিন্ন একক এর মধ্যে সময়ের ব্যবধান থাকলে এই বিধি কার্যকর হয় না।

খ) উপযুক্ত একক : দ্রব্য ভােগের প্রাথমিক একক অপর্যাপ্ত হলে এ বিধিটি কার্যকর হবে না।

গ) পরিবর্তনীয়তা : ভােক্তার অভ্যাস, রুচি, পছন্দ ইত্যাদি যেকোনাে একটি পরিবর্তন হলে এই বিধিটি কার্যকর হয় না।

ঘ) শখের দ্রব্য: শখের দ্রব্য যেমন : ডাকটিকেট, মুদ্রা, ছবি ইত্যাদির ক্ষেত্রে এই বিধিটি কার্যকর হয় না।

ঙ) আয় এর পরিবর্তন : নির্দিষ্ট সময়ে আয়ের পরিবর্তন হলে এই বিধিটি কার্যকর হয় না।

চ) বিলাস দ্রব্য : বিলাসবহুল দ্রব্যের ক্ষেত্রে এই বিধিটি কার্যকর হয় না।

ছ) ভােক্তার যুক্তিশীলতা : ভােক্তা যদি যুক্তিশীল আচরণ না করে তবে এই বিধিটি কার্যকর হয়।

ক্রমহ্রাসমান প্রান্তিক উপযােগ বিধিটি চাহিদা তত্ত্বের ভিত্তি হিসেবে কাজ করে। কাজেই বলা যায়, কিছু ব্যতিক্রম থাকার পরেও এই তত্বের গুরুত্ব অপরিসীম।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Scroll to Top